Posted by: muntasir | November 7, 2009

Kewkradong Bangladesh’s Aritcle on the Daily Janakantha

KB_janakantha_nov_09

KB_janakantha_nov_09

Advertisements

Read the original article at The Daily Star website

CIGARETTE butts, poly bags don’t fall from sky, they fall from our hands. The elements that pollute our beaches are the things that we dump in the shorelines; these elements are the things we use regularly. Each year, Ocean Conservancy — in partnership with a network of volunteer organizations and individuals — provides a compelling global snapshot of marine and inland waterway debris all over the world. In this year’s Ocean Conservancy’s 23rd annual International Coastal Cleanup, nearly 400,000 volunteers will participate in 104 countries and locations. Locally represented by Kewkradong Bangladesh, this year’s initiative in our country will include over 400 volunteers from prominent universities, colleges and different organizations from Dhaka, Chittagong and Cox’s Bazaar.

ICC 2009 volunteers Coxs Bazar Bangladesh

ICC 2009 volunteers Coxs Bazar Bangladesh

Kewkradong Bangladesh is organizing this day long programme since 2006 in Bangladesh with the help of local schools, government officials, hotel owners, sponsors, alliances, supporters and many other bodies who helped this noble venture to mark it as a success. The famous rock band ARTCELL will take part in this initiative to motivate youth to be a part of this global drive. Concito PR will be the PR partner for the whole event and AB Bank sponsoring the event.

The overall statistics of the pollution and its elements are devastating. In addition to providing the Marine Debris Index — country-by-country data about the 6.8 million pounds of trash picked up — this statistics reveal the sources of debris: from cigarette butts and fast-food wrappers to syringes and old fishing lines. It also identifies the connection between the stress caused by marine debris and the ability of the ocean and its critical life support systems to adapt to the onset of global climate change.

Recommendations provide a roadmap for eliminating marine debris altogether by reducing it at the source, changing the behaviors that cause it, and supporting better policy. Humans have created the marine debris problem, and humans must take responsibility of it. The comprehensive body of data compiled during the cleanup in the course of its 23-year history continues to inform and inspire actions. Working together, citizens, environmentalists, our top corporations, and government leaders can take effective action to eliminate the scourge of trash in the ocean. The future of the planet and the well-being of present and future generations are counting on it.

Litter can travel to the ocean from many miles inland, blown on the wind or carried along by rivers and streams. We are all responsible, from beachgoers to oil-rig workers and fishermen, for cigarette butts, food wrappers, bottles, and bags in the water. Overflowing sewage systems and storm drains add to the burden by ferrying trash from rural roads and city streets to the sea. And, despite national and international regulations against dumping, some people on boats still drop trash directly into the ocean. In recent years, organic materials that were once the most prevalent component of marine debris have been supplanted by synthetics. Not only do items like packing straps, tarps, nets, and containers last for years, but also they are often highly buoyant, traveling thousands of miles on ocean currents.

According to UNEP “Marine litter is one of the most pervasive and solvable pollution problems plaguing the world’s ocean and waterways.”

Of the 43 items tracked during the Cleanup, the top three items of trash found in 2008 were cigarette butts, plastic bags, and food wrappers/containers. All readily fall from human hands, and can be easily contained if people dispose them of carefully.

Marine debris kills. Every year, thousands of marine mammals, sea turtles, seabirds, and other animals are sickened, injured, or killed because of trash in the ocean. Animals choke or become poisoned when they eat trash, and drown when they become entangled in bags, ropes, and old fishing gear. The majority of entangled animals found during the Cleanup were bound up by old fishing line. The loss of wildlife affects not only the beauty and health of the planet, but also countless local economies based on the bounty of the sea.

Marine debris degrades ocean health and compromises its ability to adapt to climate change. Marine debris is yet another stress on an ocean already facing transformation due to global climate change in the guise of rising sea levels, warming water, and changing ocean chemistry. As marine organisms and ecosystems struggle to adapt to climate change, we can improve their resilience and help to give them a fighting chance by eliminating the stresses caused by human impacts like trash in the ocean.

After gathering all of the data this is not hard to gain a more accurate originating source of all the trash polluting our ocean. These are very specific several sources which have been identified as how pollutant items enter the ocean and water bodies — worldwide. According to the data, it’s around 61% of total amount of collected debris are sourced by shoreline and recreational activities. In a country like us this indicator shows even higher like 64%.

Marine debris is a stress on an ocean already beleaguered by many other human-caused stresses including coastal development, pollution, overfishing, and now climate change. As the engine that drives our planet’s climate, the ocean is on the front lines of climate change. It absorbs half of the carbon dioxide (CO2) we pump into the sky from the burning of fossil fuels, respiratory systems of animals and most of the extra heat produced by the greenhouse effect. Indeed, the ocean is the unsung hero in this battle. But it’s also one of the most vulnerable victims.

The first ever cleanup was held in 1986 at Texas, USA. From then on, thousands of people participate voluntarily in this initiative. This year, volunteers will gather around the Cox’s Bazaar shores on August 14 to make people realize once again how important our beautiful beaches are to us. Maybe one day wouldn’t really make a difference in the overall situation, but it may well be a start to revolutionize our overall approach.

Posted by: muntasir | June 10, 2009

Ocean, Climate change and Bangladesh

Ocean, Climate change and Bangladesh
On World Ocean Day 8th June 2009

For centuries if was common practice for ships and boats to dump their garbage at sea and water bodies. The United Nations administers a treaty that provides a comprehensive approach to dealing with this dumping. The International Convention for the Prevention of Pollution from Ships treaty is known as MARPOL 73/78 which is commonly known as International Marine Pollution treaty it contains Annexes that deal with specific discharges – oil, hazardous liquids, packaged hazardous materials, sewage and garbage including plastic. Till today we are facing the same problem along with our ocean, rivers, canal or any sized water bodies.

Ocean or any other water bodies’ gets pollutant primarily originates from two distinct sources – inland waterways and the land. This source includes boats and ships, offshore rigs and drilling platforms. The land based sources include combined sewage overflows and storm drains, landfills, manufacturing and sewage treatment plants and floating tourist and their carelessness towards managing trashes and recreation based debris.

Recently, it has become more and more evident that debris is also coming from land-based sources. Among these sources are combined sewer overflows. Usually found in cities, these sewer systems are combined with storm water drainage systems. When it rains, and too much water goes into the system, overflows of raw sewage and untreated pollutants from the streets are discharged directly into waterways.

The majority of pollutant comes from land-based activities like eating fast food and discarding the wrappers, beach trips, picnics, sports and recreation, and festivals. Litter washes into the ocean from streets, parking lots, and storm drains. And also people engaged in recreational/ commercial fishing and boating, cargo/ military/cruise ship operations, and offshore industries such as oil drilling contribute to marine debris. According to the data its around 61% of total amount of collected debris are sourced by shoreline and recreational activities. In a country like us this indicator shows even higher like 64%.

Collectively smoking related debris having the major stake in the pie of debris across the world and according to the number this is leading the top ten debris found in the beaches and near to other water bodies. Careless disposal of cigarette filters, cigar tips, lighters, and tobacco product packaging is common on both land and sea.

This cause is widely visible in Bangladesh. Unplanned sewerage, inappropriate method of disposals, legal and illegal dumping of domestic and industrial garbage in the neighboring water bodies, construction materials, or large household appliances puts big quantities of harmful items into the canal, lakes, rivers and also ocean. Due to this defined over looked activity, we are losing our water based as well as oceanic environment and making it more vulnerable day by day. Implementation of law and order is a major key finding for Bangladesh. Likewise root level awareness and benefit showcasing can also reduce the dumping performance.

Climate Change
Marine debris is yet another stress on an ocean already beleaguered by many other human-caused stresses including coastal development, pollution, overfishing, and now climate change. As the engine that drives our planet’s climate, the ocean is on the front lines of climate change. It absorbs half of the carbon dioxide (CO2) we’ve pumped into the sky from the burning of fossil fuels, respiratory systems from animals and most of the extra heat produced by the greenhouse effect. Indeed, the ocean is the unsung hero in this battle. But it’s also a most vulnerable victim.

We are already seeing the effects of climate change: Melting ice, the acidification of ocean water, rising sea levels, and extreme weather events are affecting marine life and coastal communities right now. Even if we were to stop all CO2 emissions today, we would not escape climate change impacts set in motion from excess CO2 already in the atmosphere—and in the ocean. The reality is that the concentration of CO2 in the atmosphere has risen by 35 percent in the last 175 years, and the increase is accelerating. The added burden of climate change on top of other escalating condition is creating a perfect storm of impacts that threatens the future of ocean ecosystems and life.

By eliminating significance including marine debris that degrades the integrity and health of ocean ecosystems, we can help give the ocean a fighting chance to adapt to the impacts of ocean climate change. A healthier ocean will be a more resilient ocean.

In some places, reducing marine debris could be part of the cure, increasing the odds that some ocean animals and ecosystems can adapt. Human activities such as the dumping of trash and debris, the discharge of pollutants or excess fertilizers, overfishing, and destruction of habitats by coastal development all reduce the ocean’s resilience—its ability to resist and recover from stresses. From wildlife like endangered sea turtles and the Hawaiian monk seal to biologically-rich ecosystems like coral reefs, life in the ocean will be healthier, more resilient, and better able to adapt to climate change in the absence of debris-related impacts.

Ecosystems need help, too. Coral reefs have been called the rainforests of the sea. These extraordinary living systems cover just two-tenths of one percent (2/10 of 1%) of the ocean floor, yet are home to a quarter of all the ocean’s fish species. Coral reefs offer recreation to humans as well as food and shelter to fish. They also provide a buffer that protects many tropical coastlines during severe storms. But climate change has already exacted a toll: In the Caribbean, 80 percent of coral reefs have died because of changes brought about by warming water, excess nutrients washed into the ocean from land, and overfishing. Scientists predict that if carbon emissions continue unabated, temperature rise and ocean acidification may lead to the death of most coral reefs worldwide during this century. If any reefs do survive, they will be the most resilient ones. It is our responsibility to ensure they are as healthy as possible to face the future. Marine debris compromises coral reef resilience by inflicting physical injury. Nets, plastic sheets, and other large forms of debris snag on coral reefs, breaking off living coral branches. Piles of trash block sunlight essential to the health of living coral. And toxic materials leaching from trash in the water poison these ecosystems.

As we all know Saint Martin’s island is one and only island in Bangladesh where very specific types of corals are still can be seen. Due to proper restrictions even few years ago it was wide open to collect and preserve corals in personal level. Local inhabitants used to collect these “ocean’s heart” using chisel and hammer. As a result shore neighboring corals of St. Martin’s has extinct forever. Mainly the south east and western tip of St. Martin’s island still having some specimen to believe the existence of coral in that territory. It’s true, no one is pulling or cutting the coral now a days, but collection is not stooped yet mainly for the secrete admiration among floating tourists. Deadly anchorage system near coral colonies, fishing nets and absences of mass level motivation significantly threaten our corals as well as ecological imbalance.

On the other hand commercial activities in any names which might bring unexpected number of peoples in the shore of our ocean will be potential threat for the environment. Inadequate knowledge, carelessness and unplanned employment of large gathering can be identified as equilibrilium threat for our coast. Our data shows the main pollutants as sourced by recreational tourists.

By removing and preventing marine debris, we are giving reefs a fighting chance at survival and they, in return, will continue to provide us with physical and spiritual nourishment that are critical to our health and well-being.

ICC Invitation!!
tekerghat Lake. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road

tekerghat Lake. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road

why would not we stop? its a place to spend some time. it was must. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road
why would not we stop? its a place to spend some time. it was must. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road
Lonley place i ever traveled. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road
Lonley place i ever traveled. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road

For more photos and stories please visit

http://www.flickr.com/photos/muntasir/sets/72157614966105640/

Yes Its Bangladesh. Remembaring New Zealand. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road
Yes Its Bangladesh. Remembaring New Zealand. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road
Running down after Bareker Tila. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road

Running down after Bareker Tila. East to North of Bangladesh Ride | Hillary Ride | 545km | 7 days | more than 200kms of mud road

Posted by: muntasir | April 20, 2009

Spring by the river Teesta

Time has always been a factor during making a bicycle trip as we all have work and classes to attend to. The recent events in the country were not encouraging enough for outdoor trips. Despite that the joy of riding could not resist us! The seven-member team of adventure community — Kewkradong.com — set off for Nilphamari to ride along the famous river Teesta.

Riding bicycles in Dhaka is not always pleasant, actually it’s kind of difficult because of maniac motor vehicle drivers. That’s why it’s hard to find riding mates here. We, a small group of youth known as Kewkradong.com, try locate places where we can paddle along. Despite the hassles of transferring cycles from Dhaka to another region, its full of fun to ride in rural or suburban areas in Bangladesh!

Nilphamiri is only 6 hours’ drive from Dhaka. We had to prop our bikes on bus roof at Gabtoli terminal. And that’s a real trouble because our “Chinese” bikes are too rickety to travel on bus top. They need some mandatory fixing before and after every ride.

It was dawn when we started off from the Nilphamari District Circuit House but like many previous occasions we found that one bike has a flat tire.

We put the suburb behind and followed a paved road by a canal fed from the Teesta barrage to irrigate the farmland. This road also acts as a dam and so no heavy vehicles are allowed to ply it. We felt relieved and started riding in a flock.

Light spring breeze from the south flowed over the canals and green fields. We sung and rode, we parked by the canal to dip our feet in the gentle cold water. No rush. Then we started leisurely paddle away again. Trees planted along the dam cast shades on us. It was so refreshing that we stopped counting the milestones to our destination.
This place is named “Jaldhaka” which means a place covered by water. It is said that long ago this whole area was flooded by Teesta due a devastating earthquake. Teesta was a much wider river then but now it has lost its vigor. We rarely found any tea stalls in this thinly populated area. The shops beside the road were empty except for a few curious faces eyeing us as we passed by. We could see the Teesra barrage in the distance. We found a picnic spot just beside the rest house of the Water Development Board, where we decided to pitch our tents for the night.

The northern part of Teesta is really vast, appearing like an ocean of white sand. A few canals cut through the sand. We imagined how vast Teesta might have been looking in rainy season when the shoals go under water.

Night in the tent is another fun. We used the grassy field of the rest house as our camping ground.

The next morning we stared very early en route to Saidpur. It was a fairly good road but after a couple of hours of riding we had to follow through a muddy road. It was even smoother than the paved one

We had to cross a very small part of the national high way after riding Kishorgong Taragong and using the by pass to access Saidpur town. So in a way almost whole riding – the path was just safe to following the path again. We caught the bus in the same night to reach Dhaka by the next morning!!
……………………………………..
Story & photos: Muntasir Mamun Imran

Posted by: muntasir | January 19, 2009

Arabs wear Prada!

Arabs  wear Prada!
Masakin Sheraton, Cairo
16th Jan 2009

 

My obsession made me travel to Cairo twice due to the history of human civilization and the ancient cultural phenomenon of Egypt and especially for the book named “The Alchemist”. I am not too old to snap back my childhood memories of text book stories on Pharaoh and Pyramids. It was written, this is the land where civilization begun and so far one of these are elder of its kind.

 

This time, after the New Year eve I was flying from southern hemisphere to the far north, Middle East and the North of Africa. I had promises to keep paying back my sponsors money which I have received from an Egyptian telecom giant “Orascom”. Other wise I would never thought of visiting this place during the WAR time. Which I got to know before I reached here. All of the in flight news papers were showing the massacre in Philistine. From Melbourne to Kuala lampur, Bangkok to Doha. The two weeks of genocidal activity proves that nothing is impossible, if you have the power, you can use it in any ways you want. 

 

I was following the city life of Cairo from the pedestrian by river Nile. I never climb so high before to meet some one except meeting God in the mountains. It was 27th floor of very posh Southern Tower of Nile Tower. We came up with everything within a very short time and she was showing me the way out to the elevator and stopped by a Christmas tree. It was kind of pale though but was still having the ornamentals on it. “Have you ever seen Christmas tree before?” she was wondering after asking this question. I know it was just out of blue as that tree was beside of our way out and we had to talk n walk on for a while. She was kind and generous corporate lady, so I dint miss interpret her asking. Yes, I am lucky enough to see such a colorful element before – I replied. I was happy to know among nearly 7-8% of Christian population Christmas tree is visible in here which is may not be so common in else where.

 

I had to look for a city map of cairo so that I can ride on my bicycle and can reduce my cost of transport though its like a hell of a place to try anything with any type of two wheelers. After security check I followed the escalator of very elegant Tower Mall to find out book store or travel desk (I was so fool!). I have found nothing but very expensive and exclusive shops of outfits and footwear’s. Strong fragrances of coffee and perfumes caught my attention to lead me to that source. Flock of executives were enjoying there meal and chatting loud. I found some ladies were caring their purse having a red strip on it and  some guys having the same stripe on their shoes. Yes its Prada. They wear Prada on their daily life and surly they must be having positions in the business or any of its kinds who rules!

 

 

I am having a couch at my friends place, with a cable connected TV! I was flattered to have his hospitality and facilities I am having. I found nearly 200 channels on the TV including FoxMovies, CNN, BBC and Aljazaara and rest of them are half nude Arab speaking either music or general channels. During my last trip I was fond of Zoom, Dubai based channel that grabs my all attention and most of the time while I was in hotel. No it’s not an English channel, its lurid presentation of woman through music was so illusive; I could hardly turn my eyes off the screen. They were singing in that language which most of us forced to learn (I have sentenced to take one year spoken and written Arabic course during my bachelor) or at least to read. Oh hell, God communicated with us though this language! Its holly for us, the Muslims. No matter How fast I flick around the channels I have to see them while finding news on war. I was keener on learning the stands of neighboring states of philistines.

 

Number rose up to four digits within last 24 hours, ya they are dying so fast. They are paying for all of us. I don’t know whether they are dying in the name of religion or not, they are dying. To support them I don’t need to be a religious pig in the name of Islam or Judaism. They are just another human being bottled in a place where they can hardly run. Egypt and Israel blocking both side of tail shaped territory named Gaza. From 27th December to till today death toll is increasing.

 

But where is the precaution? Where are those Islamic leaders? No one come up with anything so far. You don’t need to be Muslim to help those 7 million peoples of Philistines, it’s a question of radical humanity. Where are the Arabs? Where are Egyptians? Where are Saudis? They are the strongest among others in Middle East and North of Africa.

 

Being a Muslim, I was always dreaming of visiting the Holly Land of Islam, I wish to follow the trail of Mohammad, the way he traveled from Macca to Madina. I always wish to be a pilgrimage of Hajj. But now I can hardly feel it any more. Its impossible to theorize the act and stand of Arabs states concerning the current situation of Philistine.  

 

So far they haven’t got any common idea to way out to trim down the war cloud. No one wish to sets another joint force against Israel from the Arab world but every one like me was waiting for a decision they could come up with a bilateral seize fire.

 

I don’t know where is the patriotism of shooting some handmade local rockets to southern Israel to trigger them to lead genocide. Its fanatic in the name of humanity as you are impotent to defend your peoples. As Islam itself means peace then why they are acting so fool by being killed?

 

One of my friends told me to stand on the street of Cairo to protest the war, indeed I would love to do that, I walked every corner of city heart of the very first day, I wonder, I haven’t found anything. Cairo is just having full space of usual life. Nile is flowing, street vendors are selling bread, cars are buzzing the horns, back street boys are smoking and ruling classes cherishing their life and making it more comfortable by wearing Prada. No one wants to get dirt on it.

সে উচ্চতায় পতাকা – যেখানে পাখি ওড়ে না! 

মুক্তিযুদ্ধ বিষক এক ভিতি আমার মধ্যে সব সময় কাজ করে। কথাটার মানে অনেকে অনেক ভাবে করতে পারেন। তবে স্বাধীন দেশের এক আমজনতা হিসেবে এ বিষয়ে জানার চেষ্টা চালিয়ে গেছি অনেক সময়। মানুষের কথা শোনার চেষ্টা করেছি। সেই প্রশ্নের স্বীকার যেমন আমার বাবা হয়েছেন তেমনি আমার শিক্ষক, বন্ধু-বান্ধব, মসজিদে নামাজ পড়ার এমন কেউ। আবার বানিয়াচং এ সাগর সমান দীঘিটার সমনে যে স্কুল তার দারয়ান সবাই। তবে বু্দ্বিবৃত্তিজীবি করতে পারিনি বলে কে কি করল সে দিকে না তাকিয়ে নিজেই কিছুটা করার জন্য শেষমেষ আমার পথই বেছে নিলাম।কত উচ্চতায় আমি বাংলাদেশ কে নিতে পারি। 

বড়দের (!) মত না হোক আমাদের মত করে অনেক ছোট ভাবে। তবে স্বার্থহীন ভাবে। নামের খোজে না, কাউতে রাজাকার বানাবার জন্য না, নিজেকে মুক্তি যোদ্ধার সন্তান দাবী করার মধ্যে না। জয় বাংলা, জিন্দাবাদে না। ভর্তি পরীক্ষায়-চাকরিতে বিশেষ সুবিধা পাবার আশায় না। ২০ বছর জীবনের তিন আঙ্গুল এর এক চিমটি পরিমান জ্ঞান নিয়ে একটি পথই বেছে নিলাম কত উচ্চতায় দেশের পতাকাটাকে নেয়া যায়। এটা ঠিক অলিম্পিকে গোল্ড পাবার মত না বা ক্রিকেটের মত বীরত্বের কিছু না। এটা নিছক এক পাগলামী – পর্বতারোহন এমনই কিছু।

 এভারেস্ট! 

সেই ২০০৩ এ স্বর্ন জয়ন্তীতে যখন মহাপর্বত এভারেস্ট বেসক্যাম্প এ গেলাম তখন ঢাকায় পাহার নিয়ে মাতামাতি শুরু হয়নি। চারমাস না খেয়ে ৩৭০ মার্কিন ডলারের ২১ দিনের ট্রিপে প্রথম পতাকা টানার স্বাধ বা ভার দুই পেলাম। সে যাত্রায় ১৮৩০০ ফুটে যখন উঠি এভারেস্ট দেখার জন্য তখন আমার সাথে এক ইসরাইলি আরোহী! কি অবাক করা কাজ! সারা জীবন শুনে এলাম ইসরাইরিলা আমাদের শত্রু। আমিই তাই জানি। কিন্তু যখন হাড় কামড়ান ঠান্ডায় যে লোকটা আমার কাছে এগিয়ে আসবে সে আমার ধর্মের না! জীবনে অনেক বড় একটা শিক্ষা পেলাম, এখনও মনে করতে পারি পৃ মনসুনের মে মাসে রাত ৮টায় এভারেস্ট এর সামনে তাকিয়ে জোড়ে জোড়ে আমার বাংলাদেশ বাংলাদেশ চিৎকার যেমন সৃষ্টিকর্তা শুনেছিলেন তেমনি গলা মিলিয়ে ছিল আমর – আমার ইসরাইলি বন্ধু।ততদিন অবধি কেউ কখনও সে উচ্চতায় গেছে কিনা আমি জানি না, যেতেও পারেন। তবে আমার বাল্য মনে সেই বাংলাদেশ চিৎকার আটকে গেছে সারা জীবনের জন্য। তাই এখনও নেপালে গেলে দেখতে পাবেন পর্বতারোহীদের খুবই প্রিয় বার – রাম ডুডল এর সেন্টার বার টেবিলের ঠিক উপরে একটা কার্ড বোর্ডের পা আছে। যাতে পাচ দেশের পাচ পতাকা আর স্পস্ট বাংলায় দেখা আছে

“পর্বত চাহিল হতে বৈশাখের নিরুদ্দেশ মেঘ।“ রাম ডুডলের হাজার পঞ্চাশেক কার্ড বোর্ডের পা’র মধ্যে বাংলাদেশের নাম তখন অবদি কেউ দেখেনি। 

উত্তর ভারত। 

২০০৪ এর শেষ দিকের প্রথম দিকের ঘটনা। পর্বতারোহন শেখার জন্য ভারতের স্কুলে। এবং শেষ দিকে মহীরুহ পর্বত কেদার ডোম (৬৮৫০ মিটার) আরোহনের চেষ্টা। নানা বয়সী নানা দেশের মানুষের মাঝে আমি একটুকরো বাংলাদেশ। আমার বাম পাজরের ওপরে জ্যাকেটের পকেটে খুবই ছোট একটা লাল-সবুজ। সেই লাল সবুজের ভার অনেক অংশে বাড়িয়ে দিয়েছিলেন নেহেরু ইন্সটিটিউট অব মাউন্টেনিয়ারং এর তখনকার পৃন্সিপাল কর্নেল অশোক এ্যবি। বিখ্যাত এই পর্বতারোহী হল ভর্তি মানুষের সামনে তার জীবনেও প্রথম কাউকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন যে বাংলাদেশী। তার উচ্চারিত বাংলাদেশ শব্দের মাদকতা আমাকে লাইনের সবার শেষে দাড়াতে দেয়নি আর কোন দিন। তার সবার সামনে বাংলাদেশ পরিচিতিই বলে দেয় ‘৭১ এ তারও বোধ করি অবদান ছিল। এটা আমর ধরনা মাত্র।

 কাশ্মির। 

২০০৪ সেপটেম্বর মাসের ঘটনা। আমার বন্ধুরা সবাই চাকরি করে তখন। আমিই খালি পাহাড়ে চড়ি। তাই কাশ্মিরের স্তোক কাংড়ি আরোহনের সময় টাকা পয়সার জন্য প্রতিবারের মত সবার কাছে হাত পেতে ছিলাম। হায়! সময় পাল্টে গেছে ততদিনে। কেউ দিলনা টাকা। অগত্যা পকেটের মাত্র ২১০ ডলার নিয়ে প্রান বন্ধু রিফাত কে নিয়ে বের হলাম ১৯৭০০ ফুটি পর্বত আরোহনের নেশায়। নিজের বিশ্বাসের গুরে বালি ঢেলে দিয়েছিলাম নিজেরাই। মনে পরে কোলকাতা থেকে চন্দিগর যাবার সময় ৫ রুপির ভাতে ভাগ বসিয়েছিলাম দুই জন। স্তোক গ্রাম থেকে নেয়া হয়েছিল ৩টি ঘোড়া, ঘোড়ার মালিক আর গাইড কাম কুক – গোলাম কে।পয়সা বাচানর জন্য হোটেলে মাত্র একদিন থেকে রওনা হয়েছিলাম জীবনের সবচেয়ে কষ্টকর আরোহনে। মাত্র ৪ দিনে আমরা আরোহন করেছিলাম প্রায় ১৪০০০ফূট।

 সন্ধ্যায় কিচেন তাবুতে আমরা ৪ জন আড্ডা বসাতাম। কথায় কথায় ঘোড়া ওয়ালা বলেলন বাংলাদেশের নাম। তার বাবা সে সময় চট্টগ্রামে ছিলেন, ঘটনা কাল ‘৭১। ওনারো মনে নাই সব কিছু। তবে এটা বললেন তার তাবা আর্মির সৈনিক ছিলেন এবং চিটাগং এর কথা উনি তার কাছ থেকেই শুনেছেন। (প্রিয় হাসান মাহমুদ সাহেবের লেখায় এরকম একটা বিষয় দেখে আমি বেশ শিহরিত, আমি ভুল শুনি নাই আমার ঘোড়া ওয়ালার কাছ থেকে, হতেই পারে এমন) 

জাপান। 

Everest lady Junko Tabei

Everest lady Junko Tabei

 

২০০৫ এ এশিয়ার দেশ গুলোর তরুনদের নিয়ে যৌথ দলে বাংলাদেশ নামটাকে ঢুকাতে কিছুটা বেগ পেতে হয়েছিল। পাহাড়ে যাওয়ার কোন ইতিহাস আমাদের তখনও হয়নি। তাই প্রথম এভারেস্ট লেডি জুনকো তাবেই এর সাথে মাউন্ট ফুজি আরোহন আমার কাছে বিশেষ একটা কিছু। যদিও আরোহন হিসেবে এটাতে বাড়তি কোন কৃতিত্ব নাই তবে অনেক গুলো দেশের পতাকার সাথে আমার দেশের পতাকাটাকে একটু ভিন্ন মাত্রায় দেখতে কেমন লাগে তার স্বাধ আমার অর্বাচিন মনে এখনও তাড়না জাগায়। ফুজিইয়োশিদা শহরের মেয়রের সাথে পরিচয় পর্বে অল্প করে সবদেশের জাতীয় সংগীতের সাথে বেজেছিল – আমার সোনার বাংলা। সেই সুখ আসিফ সাহেবের সোনা জয়ের কিংবা ইউনুস সাহেবের নবেল জয়ের মত না। তবে ছোট্ট পরিসরে শ’খানেক মানুষ সে সময় আমার মুখের দিকে যেভাবে তাকিয়ে ছিল তার আকাশ পরিমান গৌরবে আমার বুক ফুলে উঠেছিল, বাংলাদেশ পাহাড়ে যায়। আমরাও পাহাড়ে যাই। আমাদের পতাকাও পাহাড়ে যায়। 

শান্তির জন্য পর্বতে।

Mt. Rubal Kang

Mt. Rubal Kang

 

গেল বছর ২০০৭ এ, ভারতীয়দের সাথে যে উচ্চতায় দলীয় ভাবে পতাকাটাকে নেয়া হল তার স্মৃতি আটকে আছে আমাদের মনে এখনও। সত্যিই ৬১৮৭ মিটার এর পর্বত রুবল কাং এ উঠার আগে কলকাতাস্থ আমাদের ডেপুটি হাইকমিশনারের হাত থেকে আইস এক্স এ বাধা বাংলাদেশের সেই পতাকাই আমরা নিয়ে গেলাম পার্বতী ভ্যালির ওপার।৩২ দিন ধরে একটা দিনের অপেক্ষা! কেন? মনে হয় সেই পতাকার জের। দেশ বলে কথা। তাই মনে হয় ৪২ বছরে ডজন দুয়েক শিখর আরোহী বসন্তদাও কাদলেন। আমরাও কাদলাম বাংলাদেশের পতাকা ধরে, ভারতের পতাকা ধরে।

 মাক্সিকো। 

Mexico

At Eagles peak : Mexico

 

ভাগ্য পরিক্রমায় মাক্সিকোর ইগল্স পিকে আরোহনের সুজোক হয়েছিল এবছরেই। সাথে আমার স্থানীয় বন্ধুরা। ৪৮০০ মিটারের পিকটাতে বাহাদুরির কিছু নাই। তবে পতাকা আকা টি শার্টে সেই নির্মল থিন এয়ারের যাপটা লাগাতে দারুন লাগে আমার। বাংলাদেশ আমার দেশ অন্তত্য কিছু মানুষের দুনিয়ায় প্রকাশ করতে পারাটা আমার মত কারও জন্যই বেশি কিছু।

 আর তাই আজও যারা পর্বতারোহন করেন, যখন বাড়তি বোঝা কমানর জন্য সবকিছু ফেলেদেন, কেউ পতাকাটা ফেলে যান না। কেন? আমি জানি না। 

এটাও ধর্মান্ধতা, এটাও মৌলবাদিতা, দেশের নামে এবং সেই কথাটার মতই সত্য – at that altitude no one wants to be a nameless orphan.

আর অন্য দেশের ছবি দিতে পারলাম না এ কারনে যে আমি বেশ কিছু দিন যাবত পৃথিবীর পথে আছি এইডস বিষয়ক সচেতেনতা বৃদ্ধির জন্য সামান্য প্রচেষ্টায়। 

Posted by: muntasir | December 1, 2008

এইডস এবং আমাদের ভবিষৎ

Newcastle, NSW
02 december 08

দৃশ্যপট: বাংলাদেশ 

কিছু দিন থেকে আমরা একটা কথা বেশ করে শুনে আসছি – “বাচতে হলে জানতে হবে”। কিসের থেকে বাচার জন্য কি জানতে হবে? কেনই বা জানতে হবে? না জানলেই বা ক্ষতি কি? সম্মক ভাবে আমাদের অনেকেরই জানা নেই যে এইডস নামক যে রোগটি পৃথিবীতে আছে তার প্রকপ থেকে আমরাও মুক্ত নই। যদিও বাংলাদেশে এর পৃভিলেন্স রেট শতকরা ১ ভাগের ও কম কিন্তু সংখ্যাতত্তের বিবেচনায় একে বারেই কম নয়। ১৫০ মিলিয়ন মানুষের দেশে ১% ও যে বেশ বড় সংখ্যা তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। যদিও বাংলাদেশে প্রথম কেসটি ধরা পরে ১৯৮৯ সাথে তবে ভয়াবহ ব্যপার হলো ২০০২ সালের মধ্যে সংক্রামিতদের সংখ্যা গিয়ে দাড়ায় ১৩০০০ এ (২০০৪ সালের ইউ এন এর এক জড়িপে দেখা যায়্)। কিন্তু মজার ব্যপার হলো আমাদের দেশের স্কিনিং সিসটেম ততটা ভাল না হবার কারনে রেজিস্ট্রাড রোগির সংখ্যা বেশ আসলের চেয়ে অনেক কম। গত বছরের শেষ অবদি এর সংখ্যা গিয়ে দ্বারায় ১২০৭ জন এ। 

Bangladesh

Bangladesh

 

যৌনকর্মী, এমএসএম (মেন হু হেভ সেক্স ইউথ মেন), মাইগ্রেন্ট, আইডিইউ (ইজ্কেটিং ড্রাগ ইউজার) দের মধ্যে এর প্রকপ সবচেয়ে বেশি। যদি কেবল যৌনকর্মীদের কথাই ধরা হয় তো দেখা গেছে তাদের ক্লায়েন্ট টার্ন ওভার রেট অন্য যেকোন সাউথ এশিয়ার দেশের চেযে অনেক বেশি। এবং শুধু তাই নয় ক্রিয়ার সময় কনডমের ব্যবহার ভয়াবহ রকম কম। ইউএন এইডস এর এক সীমিক্ষায় দেখা গেছে অঞ্চল ভেদে মাত্র ০-১২% যৌনকর্মী নতুন ক্লায়েন্টের সঙ্গে কনডম ব্যবহার করে। এছাড়াও প্রায় ১০৫,০০০ পুরুষ (!) এবং মহিলা যৌনকর্মীদের মধ্যে শুধু পতিতালয় ভিত্তিক মহিলাকর্মীরা প্রতি সপ্তাহে গড়ে ১৮ জনকে সেবা দান করে আর স্ট্রীট এবং হোটেল কেন্দ্রিক যৌনকমীরা প্রায় ১৭-৪৪ জনকে সেবা দান করে!

শুধু তাই নয় প্রায় ৯.৭ ভাগ যৌনকমীদের মধ্যে সিফিলিস এবং এজাতীয় রোগের লক্ষন দেখা গেছে। তাদের তুলনামুলক কম কনডমের ব্যবহারই সিফিলিস এবং অন্যান্য এসটিডি (সেক্সসুয়ালী ট্রান্সমিটেড ডিজিজেস) গুলোর কারন এবং যারা ফলাফল হলো এইডস এর সংখ্যাবৃদ্ধী। আমরা আমাদের ব্যক্তিগত জীবনে এমন অনেক এসটিআই (সেক্সসুয়ালী ট্রান্সমিটেড ইনফেকশন) নিয়েই বেচে থাকি এবং পার্টনারকে সক্রামিত করি। শুধু মাত্র অপ্রতুল জ্ঞান এবং সামাজিক/ পারিবারিক লজ্জার কারনে হয় আমরা ব্যপারটা এড়িয়ে যাই নয়তো কেয়ার করি না।

 

Mexican

Mexican

 

আবার ড্রাগ ইউজারদের মধ্যে এইচআইভি রেট ২০০১ এর দিকে হঠাৎ করে বেড়ে ১.৮% থেকে ৪% দাড়ায়। শুধু ঢাকাতেই এর পৃভিলেন্স রেট হলো ৯%। যা বিপদসীমার অনেক উপরে। দেখা গেছে ঢাকা শহরের আইডিইউদের ৭০% একই নিডল বার বার ব্যবহার করে এবং তাদের মধ্যে শতকরা ৮৩ জনের হেপাটাইটিস-সি আছে। আর তথ্যগুলো এটাই প্রমান করে সেই দেশের এইচআইভি আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংখ্যা যেমন বাড়বে তেমনি তা মহামারীর আকার ধারন করবে খুব শীঘ্রই। প্রতিটি ক্ষত্রেই দেখা গেছে আইডিইউ রা গৃহহীন এবং কর্মাক্ষম সে কারনে নতুন করে ড্রাগ নেয়ার জন্য তারা নিজের রক্ত বিক্রিকেই আয়ের একমাত্র অবলম্বন মনে করে এবং তা ফলে জাতীয় রক্ত সরবরাহ (national blood supply) হয়ে পরে ঝুকিপূর্ন।

আবার সেই ড্রাগ ইউজারদের মধ্যে (প্রায় পাচ জনে একজন) পতিতাগামী হয় এবং যাদের মধ্যে মাত্র দশজনে একজন কনডম ব্যবহার করে। এতে করে সরারসী এইচআইভি সংক্রামনের সম্ভবনা বেড়ে যায় মারাত্নক ভাবে।

 

 

দৃশ্যপট: পৃথিবী

এবছরের শুরুর দিকে পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৩৯.৫ মিলিয়ন (প্রায় ৪ কোটি) মানুষ এইচআইভি দ্বারা আক্রান্ত হয় এবং যা কিনা ২০০১ সালেও ছিল ৩২.৯ মিলিয়ন (৩ কোটি ২০ লখ্য)। প্রতিবছর নতুন আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৪ মিলিয়ন এবং মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২.৯ মিলিয়ন যা ২০০১ এ ছিল ২.২ মিলিয়ন।
wt11 

 

Brazilian

Brazilian

 

সামগ্রিক ভাবে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গুলো মূলত কার্যক্রমহীন হয়ে পরার কারনে মহামারীর ব্যপকতা যে নিশ্চিত সে দিক বিবেচনায় ইউগান্ডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং উত্তর ইউরোপের দেশ গুলোর অবস্থা বেশ ভয়াবহ। এছাড়াও অন্যান্য দেশ গুলোতে যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ব্যপক তাদের মধ্যে এখনও এইডস বিষয়ক জ্ঞান এবং প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহনে অবহেলা প্রকাশ করে। 

আর এই সক্রামকব্যধীর প্রত্যক্ষ শিকার হলো মহিলারা।জেনডার ইনইক্যুয়ালিটি এই ব্যধীকে “Feminization” মহামারীর রূপদান করেছে। যদিও পরিসংখ্যানে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে এভাবে যে কম বয়স্ক নারীর তুলনায় বেশি মাত্রায় আক্রান্ত হচ্ছেন বিবাহীত মহিলারা। সামগ্রীক ভাবে সারা পৃথিবীতে প্রায় ৪৮% মহিলা আক্রান্ত হয়ে পরেছেন এবং নতুন আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় ৪০% হলো প্রাপ্ত বয়স্ক মহিলা। 

আইডিইউ, যৌনকর্মী, প্রিজনার, মাইগ্রেন্টস এবং এমএসএম (গে’)রা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সবধরনের স্বাস্থ্য সেবা থেকে নিজেদের বিরত রাখেন বা রাখার চেস্টা করেন। যেকারনে শুধু মাত্র এমএসএমদের মধ্যে এখনই এটা বিশাল আকারের মহামারী রুপ ধারন করেছে। এবং সে দেশ গুলোর মধ্যে প্রথম দিকে আছে কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনাম। 

wt2 

বিগত ২৫ বছরের এই মহামারী আকারের এই রোগের বিরুদ্ধে বাস্তবিক কিছু করার জন্য সম্মোনিত ভাবে কাজ করা যেমন জরুরী তেমনি দীর্ঘ স্থায়ী, সাসটেনএবল মাঠ পর্যায়ের কাজ কে বেশি মাত্রায় প্রাধন্য দিতে হবে। এটাকে শুধু সরকারের একার কাজ কিংবা তাদের ঠিক করা ইন্ফ্রাস্ট্রাকচারের খাচায় নিজেদের আটতে রেখে তাদের দিকে তাকিয়ে থাকলে চলবে না। বরঞ্চ আমাদের সবার এগিয়ে আসতে হবে জেন্ডার ইনইক্যুয়ালিটি, স্টিগমা, ডিসকৃমিনেশ এবং মানবাধীকারের লঙ্ঘনের মত সব বিষয় নিয়ে। কেননা ভবিষৎ আমাদের হাতে।

  

আমি মুক্ত আকাশ বাংলাদেশ নামের একটি সেল্প হেল্প গ্রুপের সাথে কাজ করছি স্বেচ্ছাশ্রমের বিনিময়ে এবং গত জুন মাস থেকে এই সক্রামকব্যধীর বিরুদ্ধে গনসচেতেনতা বৃদ্ধির জন্য সাইকেল নিয়ে আমার বিশ্ব ভ্রমনে সময় সময় এমন অনেক মানুষের সাথে দেখা হয়েছে যারা সক্রামিত বা আক্রান্ত। আমি তাদের সাথে কথা বলেছি, থেকেছিও। এখন আমরা যতই বলি না কেন আমরা সবাই সমান, সত্যি কথা এটাই আমরা তাদেরকে কখনই অন্য আরেকজন মানুষের মত করে নিতে পারিনি। এই কথাই বিভিন্ন ভাষায় আমি শুনেছি সেটা যেমন বাংলাদেশের মানুষের মুখে কিংবা নিকারাগুয়া বা গায়ানার যে মানুষ তাদেরও কথা একই।

 

ব্যপারটা যতদিন থামাচাপা অবস্থায় থাকবে, ততদিন আমরাই আমাদের ক্ষতি করব। কারন এর প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ অধিকর্তা হলাম আমরা নিজেরাই। কথা বলুন, জানতে চেষ্টা করুন, নিজের পার্টনের সাথে বিশ্বাসী হন আর যদি কিনতেই হয় তো আরও কিছু টাকা বেশি খরচ করুন।

 

এইডস নিয়ে আপনার ছেলে বন্ধু বা মেয়ে বন্ধুর সাথে কথা বলাটাকে টাকে বাড়তি সুজক দেয়া কিংবা তার কাছ থেকে বাড়তি সুজক নেয়া মত যে না হয়ে পরে।

 

 

বিশ্বাস করুন ব্যপারটা সত্যিই আরও ভয়াবহ এবং এমনকি বাংলাদেশেও!

পৃথিবীর পথে বাংলাদেশ

নিউ জিল্যান্ড পর্ব (১৬/১১/০৮ নিউক্যাসেল, অসট্রেলিয়া)

I am traveling for a cause, I am letting peoples know about HIV and AIDS. For more please have a look at http://www.muntasirmamun.com.

প্রিয় পাঠক, আমার লেখার অতি মাত্রায় ভুল থাকে, দয়ে করে ক্ষমা করে দিবেন। আমার পোস্ট গুলোর পর যারা আমাকে উৎসাহ দেয়েছেন তার জন্যই আমি লেখাটাকে বাড়ানর সাহস পেয়েছি। মূলত আমি গল্প শুনতে ভালবাসি।যাদের উত্তর দিতে পারিনি, আমি ক্ষমা প্রার্থী। মুক্তাঙ্গনের যারা আমার লেখার মন্তব্য করেছেন তাদের প্রতি আমার অকৃত্তিম ভালবাসা। অবিশ্বাস্য সব মন্তব্য করেছেন অনেকেআমি তাদের প্রতিদানের চেষ্টা চালিয়ে যাব, যতটা পারি।

আর আমার এই লেখাটা সেই অচেনা বন্ধু নির্জন সৈকতের উৎসর্গে। যার কথা আছে অল্প করে।

+++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++

অকল্যান্ড এবং স্কাই tower

ভ্রমন পরিক্রমায় আমার নিউ জিল্যান্ড আসতে বেশ খানিকটা সময় এবং কাঠখর পোড়াতে হলো। ম্যক্সিকো থেকে এখানে আসার জন্য আমি কোন পথেই খুজে পাচ্ছিলাম না। হয় আমাকে আমেরিকা হয়ে আসতে হবে নয়তো ইউরোপ। আমার ফিরতি টিকেট হলো সাও পাওলো থেকে দুবাই হয়ে ব্যংকক। তবে সমস্যা এখানে যে আমার থাই ভিসা শেষ হয়ে গেছে অনেক আগে এবং সপ্তাখানেক আগে থাই এম্বেসিতে ভিসার জন্য আবেদন করেও কোন ফলাফল পাচ্ছিলাম

অকল্যান্ড এবং স্কাই tower

না। অফিসারের বলে দেয়া সময় মত ফোন দিলে সুন্দর মত বলতেন আমার কাগজ অন প্রসেস। আমি আর কিছু বলার আগেই তার লাইনটা কেটে যেত কেন জানি। আমি কি পরিমান আসহায় বোধ করতাম তার কোন প্রমান আমার হাতে নেই। ভাগ্যটা প্রসন্ন ছিল ম্যাক্সিকোতে খুজে পাওয়া বাংলাদেশীদের সাহায্য না পেলে সে যাত্রায় আমাকে হয় পথেই বসে থাকতে হতো। এবং এছাড়া আমার আর করার কিই বা থাকতো আমি জানি না।

ঈদের আনন্দ আমার পরিচিত দশ বাংলাদেশীর চোখে মুখে। আমি এখন তাদেরই একজন। না পারতে আমাকে বেশ কটা দিন আরোও থাকতে হলো তাদের সাথে। এবং ভাগ্যবীনা বেজে উঠল ঠিক ঈদের পরের দিন। আমি থাই এম্বেসি থেকে ভিসাটা পয়ে গেলাম শেষমেষ। দেরি না করে সোজা চলে এলাম ব্রাজিল আবার। থাকতে হবে মাত্র কিছুটা সময়। তাই আর এয়ারপোর্ট থেকে না বের হয়ে অভ্যাস বসতো হাটতে থাকলাম বাংলাদেশের খোজে। যে গেটে আমাকে অপেক্ষা করতে বলা হয়েছিল কাস্টম থেকে সেটার যাত্রিরা ডালাসগামী। আমি তাদের মাঝে আমাদেরই মত দেখতে একজনকে খুজে পেলাম।ফ্লাইটের দেরি আছে। ল্যাপটপে মুখ গোজা ভদ্রলোকের সাথে আমাদের ল্যাপটপের কানেকসশন জনিত সমস্যা সমাধানের উছিলায়। একটু আশা হত হলাম। তিনি আমার দেশের তো নয়ই ইভেন এশিয়ারই না। গায়েনায় থাকেন ।চলে এলাম আমার জায়গায়। ল্যাপটপএ লেখার ভান করে আমি মানুষ খুজি আমাদের মত কেউ। পেলামও। দাড়ি টুপি পড়া এক ভদ্রালোক পরিবার নিয়ে আমি যে ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষা করছি তিনিও তার জন্যই খোজ নিচ্চেন। বেশ খুশি মনে এগিয়ে গেলাম তাদের কথোপকথন শোনার জন্য। অহ! ইনি তো পাকিস্তানী! পালিয়ে এলাম কেন জানি না । ঘন্টাখানেক বসে বসে মানুষ গোনা ছাড়া আর কিছু করার না পয়ে হাটা শুরু করলাম। ঠান্ডায় লাগছিল বেশ।

এবার ছোট একটা দলের দেখা পেয়ে এগিয়ে গেলাম মনেই হলো ভারতেরই হবে। হ্যা, তাই। বন্ধু বৎসল তিন ভদ্রলোক তিন কারনে ব্রাজিলে এসেছেন। বেশ অবাক লাগলে শুনে তাদের একজন এখানে এসেছেন কম্পানি পরিদর্শনে। নকিয়া কম্পানির জন্য তারা কিছু প্লাস্টিক বেইজড প্রডাক্ট তৈরি করে এবং একই কম্পানি ব্রাজিলেও প্লান্ট বসার জন্য জন্য এক্সপার্ট হিসেবে তাকে আসাতে বলেছেন। আমি সেই কাজের পরিধিগত বিষয় জানার চেষ্টা করে বুজতে পারলাম এটা এখনও কুটির শিল্পের পর্যায়ে আছে। হয়েতো বা এটা আমার অপারগতা তার কথাটা আমি পুরোটা না বুঝেই জিগ্গেস করেছিলাম এমন কিছু কি আমরা করতে পারি না। তার মতে, এটাতে যেমন বেশি ইনিসিয়াল ইনভেস্টমেন্টের দরকার হয়না তেমনি প্রয়োজন হয় না বিশাল ইন্ফ্রাস্টাকচারের। দরকার হলো কম খরচের জনশক্তির জোগান দেয়া (প্রিয় পাঠক, অপ্রিয় হলেও সত্য, আমি তার কর্ম প্রনালীর বনর্না টার খুব একটা কিছু বুঝতে পারিনি তাই আমি ঠিক বর্ননা করেতে পারছিনা এটা কেমন ধরনের শিল্প। ক্ষমা প্রার্থনায়।)খানিক বাদে পাকিস্তানি ভদ্রলোকও জমায়েত হলেন আমাদের আড্ডায়। আমি একটা দারুন বিষয় খেয়াল করলাম যখনই তারা কথা বলেন তখন হিন্দিতে বলার চেস্টা করেন আমার সাথে। কেন জানি না তাদের ধারনা আমরা সবাই হিন্দিতে কথা বলি। আমাকে এমনটাও অনেকে জিগ্গেস করেছে আমাদের জাতীয় ভাষা কি এবং আমরা হিন্দি যে বলিনা এটা শুসে তারা বেশ মর্মাহত। তবে একটা বিষয় আমার বেশ গর্ববোধ হলো, যখন সবাই কেকিকেনকি করে নিয়ে ব্যস্ত তখন আমার কর্মকান্ড নিয়ে তারা ভিষন ভাবে অবাক কেননা তারা এক চিন্তায় করতে পারেন না আমরাও এমনটা করতে পারি।

সময় শেষ হল সেই লম্বা আটলান্টিক পারি দেয়ার। আমি ব্যাংককে এসে নিউ জিল্যান্ড এ জাবার জোগার যন্ত্রনা শুরু করলাম। প্রথম ভুলটা করলাম হংকং হয়ে অকল্যান্ড যাবার টিকেট কেটে। পরের দিন সকালে আমার ফ্লাই আমি সন্ধায় যানতে পারলাম আমার হংকং হয়ে যাবার জন্য ট্রানজিট ভিসা লাগে। কি করবো বুঝে উঠতে পারছিলাম না। সেই সন্ধ্যায় আবার টিকেট বদলাতে গিয়ে বেশ কিছু টাকার বেহুদা খরচা হলো। একে তো প্রায় নি:স্ব তার উপর অযথা খরচ সামলানর মত কোন অবস্থাই আমার তখন ছিল না। শেষমেষ সব ঝামেলা চুকিয়ে মালয়শিয়ান এয়ারলাইন এ করে অকল্যান্ড এ এলাম।

এটা সত্য আমাকে নেয়ার জন্য আমার এক বন্ধু বড় ভাই ড: ফকরুল আলম এসেছিলেন এয়ারপোর্টে। এই ব্যাপারটাতে আমি ভিষন ভাবে ভাগ্যবান বলতে হয় যে আমি যেখানেই গিয়েছি সেখানেই কাউকে না কাউকে পেয়েছি যিনি এসেছিলেন আমাকে নেয়ার জন্য। এটা করা শুধু কটা টাকা বাচানর উছিলায় এবং কোথায় উঠবো তার একটা খোজ পাবার। ঠিক পূর্বেকার মত বোর্ডিং হয়ে বের হবার সাথে সাথে পুলিশের নেক নজরে পরলাম এবং তার সকল কৌতুহল হলো আমার ইম্বাকেশন ফরমটার দিকে। অতি সাধারন কিছু কথা জিগ্গেস করার পর আর স্থানীয় কন্টক্ট এড্রেসে যোগাযোগ করলেন আমার সামনেই। কিছুটা চিন্তায় ছিলাম, কি হয় কি হয়। না কিছু হলো না। স্বাগত জানালেন।

Spirit of Resolution

Spirit of Resolution

Christcharuch

Christcharuch

এর চেয়ে কোন সস্তা থাকার ব্যবস্তা করার কোন উপায় ছিলনা অকল্যান্ড শহরে। অনেক খুজে পেতে কুইন স্ট্রিটের এই হোস্টেল এ এলাম প্রতি রাতের ভাড়া ২৪ ডলার করে তাও একই রুমে ৮ জনের থাকার ব্যবস্থা। ভ্রমন পরিক্রমায় নানাপদের জায়গায় থাকার সৌভাগ্য বা দূভার্গ যাই হোক না কেন এই অভিঞ্জতা একে বারে নতুন। সত্যি আমি আগে এমন কোন জায়গায় থাকিনি। এটা ভাল না খারাপ তার চেয়ে এটা বলা ভাল এটা আমার জন্য নতুন অভিঞ্জতা।

স্থানীয় বাংলাদেশিদের সাথে দেখা হতে খুব একটা বেশি সময় লাগল না। অত্যন্ত অতিথীপরায়ন প্রবাসী বাংলাদেশীরদের একটা অর্গানাইজেশন আছে, বাংলাদেশনিউ জিল্যান্ড ফ্রেন্ডশিপ এশোসিয়েশন। দেখে ভাল লাগার মত ছোট করে হলেও তাদের বসার একটা জায়গা আছে। আছে বাংলা পত্রিকা আর “একতার” বাংলা রেডিও। তাদের কাছেই জানতে পারলাম প্রায় ৬০০ জন বাংলাদেশী আছে এখানে। তবে কেউই মূল শহরে থাকনে না। এবং আরেকটা বিষয় জানতে পারলাম দেশ থেকে এতো দূরে এসেও আমরা সবাই একসাথে হতে পারিনি। দল আছে, মত আছে, আছে মতভেদ। আমি বাংলাদেশ পেলাম, প্রসান্ত মহাসাগরের পারে। কিছু বিজয়ী মানুষের কোলাহলে, সামাজিক ব্যবধানের আরেক রুপে।

আমার সাথে অনেকেই যোগযোগ করার চেস্টা এবং যোগাযোগ করেছেনও। এবং এটা সত্যি সত্য তাদের সাহায্য ছাড়া আমার পক্ষে টেকা দায় হয়ে যেত। তারা আমাকে এই বলে অভয় দিযে ছিলেন যখন যা লাগে তাই যেন বিনা দ্বিধায় চেয়ে বসি। আমাকে নিয়ে এপাড়া ওপাড়া, এ দ্বীপ ও দ্বীপ ঘুরে নিজের বাসায় পেল্লাই সাইজের ডিস খেতে দিযেছেন এবং দিতে চেয়েছেন অনেকে। আমি বেশ কজনকে দেখেছি যারা নিজের দেশটাকে নিয়ে এসেছেন এই দ্বীপ রাষ্ট্রে গলিতে। বিশেষ করে আমার পরম বন্ধু সাকিবের ছোট্ট ঘরে হট্টগোলের সুজোক আমি অনেক দিন মনে রাখবো। আমাদের ধর্মপরিচয়অভ্যাস সবই যেন এক তবে কোথায় যেন একটা “কিছু” আছে। আমি জানি না সেটা কি, কিন্তু এটা সত্য, আছে কিছু একটা।

যাত্রা পথে অনেক মানুষের সাথেই কথা বা সময় কাটাবার সুযোগ হয়েছিল। এবং সত্যি কথা তারা আমাকে নানা জায়গায় নিযে গেছেন এবং যাবার পরামর্শ দিয়েছেন। এবং তারা এটা দেখে অবাকই হয়েছেন আমি শুধু মানুষ দেখায় তারনায় মশগুল! কেন জানি তারা ব্যাপারটা মেনে নিলেও বুঝেযে উঠতে পারতেন না সেটা বলে ফেলা যায় সহজেই। তাদের অতিপরিতৃপ্ত চোখের ভাষায় সে দেশ দেখতে আমার ভাল লাগত। তারা আজ কত সুখি। “আচ্ছা ইমরান তুমি কিন্তু অবশ্যই কুইন্সল্যান্ড এ যাবে, বুঝলা এটা দেখলে সারা নিউ জিল্যান্ড এ আর দেখার কিছু নাই”। তার বলার সে ভাষা, চাহনিতে ঠিকরে আসত! আমি কষ্টে গুংগে উঠতাম কেউ আমাকে বাংলাদেশের গল্প করতে বলে না। বলে না আমাদের কোথায় যাওয়া যেতে পারে পরের বার দেশে গেলে। আমি প্রতিবার শিউরে উঠতাম খানিক বদলে যাওয়া মানুষ গুলোর পরম আতিথীয়তায়। তারা আমার জন্য যা করেছেন তার যোগ্য আমি ছিলাম বলে মনে হয় না। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ঝানু একাউন্টেন, বিখ্যাত মনসত্বত্তবিদ সবাই আমার সফল্যকামনায় অন্তিম যে আগ্রহ দেখিয়েছেন তার প্রতিদান দেবার জন্য আমার যা ছিল তা নিতান্তই বাংলাদেশের কিছু গল্প! নতুন কিছু নয়।

the Path!

the Path!

পরিকল্পনায় ছিল অকল্যান্ড থেকে ক্রাইটসচার্চে যাব আমার সাইকেলে করে। এবং মজার বিষয় হলো আমার কাছে মাত্র ৩৫০৳. বিশ্বাস করাটা কিঞ্চিৎ কষ্টের। আমি হাফসে উঠতাম আরেকটা দিন কিভাবে কাটাবো এখানে, একটা বেশিরাত মানে আরও কিছু টাকা বের হয়ে যাওয়া। আমি দিন গুনে গেলাম।

হটাৎ করেই অকল্যান্ড থেকে ক্রাইটসচার্চে যাবার একটা সুজক করেদিলেন ক্যাপ্টেন মাহমুদ সাহেব। তিনি স্থানীয় এক মেরিন শীপের ক্যাপ্টেন। একথায় রাজি হয়েগেলাম। যদিও আমার পুরো পরিকল্পনা বদলে গেল বেশ। আমি সমুদ্র ভ্রমনের আমেজে মশগুল হয়েগেলাম।

সব ঠিক মতই চলছিল খালি আমার সাইকেলটা শেষকালে বিগরালো। একটা প্যাডেল কাজ করছেনা। দেশেও আমার সাইকেলের একই সমস্যা।তবে প্রতিটি প্রতিরোধের ক্লান্তি আমাকে সাফল্য পেতে সাহায্য করছে অতীতে এবং তাই সারতে কষ্ট হলেও মনের মাঝে বল পেলাম, এতটা পথ পারি দিতে পারবো তো? পকেটের অবস্থা অতটাই করুন যে রওনা দেয়ার আগে মেইল করেছিলাম আমার কিছু বন্ধুর আছে। ব্যাপারটা বেশ বন্ধুর ছিল আমার জন্য। জাহাজে চরার আগেও জানতাম না আমার কি হবে যখন আমি রাইড শুরু করব। আমার কাছে ১০০ টাকারও কম আছে এতেই আমার প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার পথ চলতে হবে। কোথায় থাকবো কি খাব জানি না। আমি প্রাণ পনে চাইতে লাগলাম একটা মেইল, কিছু টাকার অনুদান! হাহ! অপেক্ষা।

টাসমান সীতে আমাদের জাহাজ “সিপিরিট অব রেজুলুশান” বেশ টালমাটাল ছিল তাই প্রথম সমুদ্র যাত্রা আমার জন্য বিভিশিকাময় হয়ে উঠল। চলতে শুরু করার ঘন্টাখানেকের মধ্যে সী সিক হয়ে গেলাম। সে যাত্রায় পরিত্রান পাবার আমার বিন্দুমাত্র সম্ভবনা ছিলনা ক্যাপ্টন মাহমুদ সাহেবের আত্নিক পরিচর্যা না পেলে। প্রথম দিন কোন কিছুই খেতে পারলাম না। দ্বিতীয় দিনে প্রসান্ত মহাসাগর আমার প্রতি কিছুটা নম্র হবার কারনেই মনে হয় প্রকৃতির সৌন্দর্যলীলা উপভোগের সুজগ পেলাম।

এটা কেমন তার বর্ননা দেয়া আমার পক্ষে সম্ভব না তবে এটা ঠিক আমি এমন কিছু একটা দেখেছিলাম যেবার ঢাকা থেকে আমাদের নিজেদের নৌকা “দইজ্জা গরম”এ করে সেইন্ট মার্টিন্স এ গিয়েছিলাম। প্রশান্তের জল আমাদের মত নয়, এটা নীল। ডলফিন? হ্য আমরাও কক্সবাজার থেকে উত্তরের টিলাগুলোকে বামে রেখে রেখে যখন এগিয়ে যাচ্চিলাম তখন প্রথমটায় ভিমরি খেয়েছিলাম ডলফিন দেখে। তবে জলের রং ছিল হালকা সবুজ।

আমি প্রশান্তর সৌন্দর্যে শান্তি পেলাম এই ভেবেএ সৌন্দর্য্ আমার কাছে একেবারে নতুন নয়। আমার দেখে বঙ্গোপসাগরের ঢেউ এর আছরে পরার শব্দ এই জাহাজের মত না হলেও ভীনগ্রহী নয়। আমার আনুভবে মহাসাগর প্রশান্ত লজ্জিত হবে না, কেননা হেট হয়ে থাকা ছোট একটা মানচিত্রে বড় হওয়া এই আমার আমি চেতন এবং অবচেতন মনে দেশটাকে খুজি সব সময়। এটা আমার দোষ, ভুল না। আমি মেনে নেই নিজেই।

i have seen it or something like it in Bangladesh

i have seen it or something like it in Bangladesh

মহাসাগর শীতল বাতাস বইয়ে দিয়ে নিজের তেজ কমিয়ে নিয়েছিল আমাকে দেখবার সুজোক দিয়ে। সীমানা কতো বড় হয় আমার জানা ছিলনা। পরিমিতির হিসেবে হরতাল হল আমার মনে। আমি গুলিয়ে ফেললাম! বিধাতা আমার দৃষ্টি বাড়িয়ে দাও – দেখতে দাও আরও কিছু।হ্যা, আমার আমার হিংসুটে মনে একটা কথায় আটকে গেল – প্রশান্ত মহান এবং সত্যিই বিশাল!

পরদিন সকালে ভূমিতে পা দিয়ে প্রথম মনে হলো সারা পৃথিবীর আজ অসুক করেছে। এত নরাচরা আগে কখনও করেনি।আমি বুঝে নিলাম আমার জাহাজ ভ্রমণের দুলনি এখনও যায়নি। সেদিন থেকে গেলাম ক্রাইস্টচার্চে তবে মাহমুদ সাহেব এবং সাখু ভাইয়ের সাথে শহর দেখা হল। খুজে পেলাম বিদেশ মানচিত্রে আরেক বাংলাদেশ – “টেস্ট অব ব্যঙ্গল” বাংলা খাবার। অনেক দিন বাদে বাংলা খাতির পেলাম ভদ্রলোকের কাছ থেকে। আর কোন বাংলা দোকান এখানে আছে কিনা আমার আর জানা হলো না। চলে এলাম হোস্টেলে।

সকালে মেইল চেক করে দেখলাম আমার ডাকে সারা দিয়েছে যে জন তিনি আমাকে চেনেন ও না। সুদূর আমেরিকা থেকে আমার সারভাইব করার জন্য বিশাল এক উপহার অপেক্ষা করছে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন মানিট্রান্সফারের জানালায়। এযাত্রায় উৎড়ে গেলাম মনে হয়। আমার এই বন্ধুর দেখা পেলাম সত্যিই এক বাজে সময়ে। পরিচয় পর্বটা হয়েছিল কেমন জানি ভাবে। আমার আকুলমন “বলাকা” কবিতা পরার জন্য আকুপাকু করছিল যখন, আমি হেনতেন সবাইকে মেইল করে উত্তর না পেয়ে “আমারব্লগে” পোস্টটা দিলাম। খানিক বাদে মেইল পেলাম স্পস্ট বাংলা লেখা কবিতাটি আর প্রেরকের নাম নির্জন সৈকত! হেয়ালিপূর্ন লেখায় ভালবাসার আবেশ জড়ান কটা লাইন আমি পরেছিলাম ম্যাক্সিকোতে বসে। কত বার? অনেক বার, অনেক অনেক বার। কখনও কবিতার গন্ধ শোকার জন্য কখনও বা তার সাধুবাদে কাবু হবার জন্য। ধন্যবাদ বন্ধু! খুবই বিশ্রি রকম হাহাকারের মাতমে আপনার সম্প্রদান ছিল তেমন কিছু যার প্রতিলিপি লেখা কিংবা পরিশোধ করার সার্মথ আমার না হলেও চেষ্টা করব প্রতিবার। সাহস দেবার জন্য স্বাধুবাদ! জয় হোক।

খাবার কেনা হলো সে টাকায়। আমি যাবার প্রস্তুতি নিলাম দু স্লাইস রুটি খেয়ে। সমস্যা হলো মূল শহর গুলো থেকে বের হওয়াটা একটা ঝামেলা। কেননা তাদের মোটরওয়ে গুলোতে সাইকেল চালান নিষেধ। শহর থেকে বেরতে বেরতেই বেশ সময় চলে গেল। যখন হাইওয়েতে উঠে গেলাম আর কোন চিন্তা থাকলো না। জানি আমি এই পথই আমাকে নিয়ে যাবে একে বারে শেষ সীমায়। শুধু চালিয়ে যাওয়া।

My tent

My tent

এদেশ সম্পর্কে আমাদের সবারই কম বেশি জানা আছে। একে তো দুধের জন্য আর হলো অস্বাভাবিক সৌন্দর্য্য এ জন্য। ক্যালেন্ডারের পাতায় তাদের অতি প্রাকৃত সৌন্দর্যের আক্ষান সেই ছোট বেলায় দেখা ছবির প্রতিলিপির খোজ আমার মাঝে এখনও। হোস্টেল থেকে বের হবার সময় ইন্ফো ডেস্ক থেকে জানতে পারলাম শহরতলী থেকে কিছুটা বের হবার সাথে সাথে আমি আসল নিউ জিল্যান্ড দেখতে পাব।

কথাটা একে বারেই সত্যি। আমি বেশ আশাহত হয়েছিলাম অকল্যান্ড শহর দেখে। আমি কোন প্যার্টান খুজে পাচ্ছিলাম না আসলে। না চোখে পড়ার মত আর্কিটেকচার, না অতি আধুনিক কোন কিছু। না পুরাতন, না নতুন। কেমন জানি ব্যাপরটা। তবে এটাও সত্য বৃটিশদের ফার্ম হাউজ নামে পরিচিত এদেশের সবই আছে শহরের বাইরে। ছিমছাম, গোছান মনে হয় রাস্তার পাশের প্রতিটি ঘাস। এবং বিস্তির্ন মাঠের মধ্যে যখন কোন ফার্ম হাউজ চোখে পরে তখন ঠিক লিটল হাউজ অন দি প্রইরির কথা মনে পরে যায়।

স্ট্রবেরির বাগান আছে পথের পাশেই আগেই শুনে ছিলাম দোকান থেকে ঝুড়ি নিয়ে বাগানে গিয়ে ফল উঠাতে হয় নিজেকেই এবং সে সময় যে যতগুলো খেতে পারের তার দাম দিতে হয় না। ব্যাপারটা সত্যিই অদ্ভুত। পথের সাথে পথ এসেছে আমাদের নদীর মত। ফারাক একটাই আমাদের গুলো একটু কম পরিস্কার আর এখানের সব কিছুতে একটু বাড়াবাড়ি।

প্রথম দিনের আবহাওয়া ছিল মনে রাখার মত ভাল। একা আমি এগিয়ে যাচ্ছিলাম জগতের পেট চিড়ে সোজা সামনের দিকে। দুপাশে সবুজের নদী, উপরে নীল আকাশ আর আমার সামনে ৩০ ফুট চওড়া কালো পিচ মোড়া পথ! তবে হাওয়ায় দম আছে। কখনও আটকে রাখে একই জায়গায় আবার কখনও বাতাসে ভর দিয়ে এগিযে যাই। আমার শরীর বাতাসের অংশ হয়ে পরে। আমার মনে পরে প্রিয় বই “দ্যা এ্যলকেমিস্ট” এর সেই কটা লাইন। মরুদ্যানে ধরা পরা বৃদ্ধ এ্যলকেমি আর মেষ পালক সাদিয়াগোকে যখন পরীক্ষা দিতে হয়েছিল যে তাদের কথা প্রকৃতি শোনে। তার আকুল আবেদনে বাতাস সায় দিয়েছিল, সায় দিয়েছিল মরু, এবং পরাক্রমি সূর্য! বিশ্বাসের অপর নাম সাফল্য।আমার মাঝে জগত এসে ভর করত। আমি হাটার মত করে এগিয়ে যেতাম। খুবই ধীরে। পায়ের বদলে পথ আকরে আছে আমার সাইকেলের চাকা। মাঝে মাঝে আমার ডান হাটুতে কট কট শব্দ হচ্ছে। আমি থেমে যাচ্ছি। তবে এক বারে নয়। কেমন এক ভাবলেশহীন অবস্থা।

Alps and the pacific

Alps and the pacific

প্রথম দিনে ইতি টানরাম সুন্দরম এক গাছ ঘেরা জায়গায়। থাকার জায়গা বলতে আমার তাবু আর খাবার বলতে রুটি আর বাটার। সন্ধা থেকে শুরু হতো আমার রাত্রিবাস। এখানে সন্ধ্যা নামে আমাদের রাতের প্রথম প্রহরে তবে সবাই ঘরে ফেরে ঠান্ডা বাতাসে কাবু হবার আগেই। আমিও তাবুর দরজাটাকে একটু ফাক করে রেখে বাতাসের ঝালরটাকে আটকে মৃদু ভাবটাকে উপভোগ করি। বই পড়ে সময়কে পরাজিত করার চেষ্টা করি। সময় যেন থেমে থাকে নিজের মত করে। চারপাশ নিশ্চুপ। আমি আমার বড় করে শ্বাসটানার শব্দ পাই। নিজের কাছেই জানতে চাই আর কতটা পথ পেরুলে তবে নিজেকে চেনা যায়! আর কতটা পথ পেরুলে তবে জীবন চেনা যায়! ব্যাগ থেকে সব কিছু বের করে পরিপাটি করে সাজিয়ে রাখি তাবুর দেয়ালে আর মেঝে জুড়ে। আমার বসত এই ছোট তাবুটাই আমার ঢাকার ঘর। শুধু রাস্তায় রিকশার শব্দ নেই। নাইট গার্ডের কান ফাটা বাশি নেই। সবই আছে শুধু আমার ঢাকা নেই এখানে। তবুও আমি তাকে নিজ রূপদান করার অক্লান্ত চেষ্টা করি। পিঠের ব্যগটাকে বালিশ আর রাত জেগে বই পড়ার জন্য মাথার কাছে যে বেড ল্যাম্পটা ছিল তার জায়গা নিয়েছে আমার জেনন হেড ল্যাম্পটা। প্রতিদিন রাস্তায় যা পরে থাকত পড়ার মত কিছু তাই আমার রাতের পড়ার বই। পর দিন সকালে তাকে অবহেলায় ফেলে দিতাম বাড়তি বোঝাটা কমাবার জন্য।

সকাল হয়। স্লিপিংব্যাগের উষ্নতা আমাকে ছোট বেলায় স্কুলে যাবার কথা মনে করিয়ে দেয়। কত দিন আমার মায়ের বকা শুনি না। কত কাল ধরে তার গন্ধা মাখা হাত আমার কপালে পরেনি স্কুলে যাবার অনুরোধে। আমি আজ অনেক বড় হয়ে গেছি – আমাকে ডাকার জন্য কারও প্রয়োজন হয়না। শুধু সকালের শীত আর কুয়াশা জরান সকাল আমাকে মনে করিয়ে দেয় আমার শৈশব। অতি কষ্টে লেপ থেকে বের হয়ে স্কুলে যাবার যন্ত্রনা আমায় স্মরণ করিয়ে দেয় সে কষ্টে যে সুখ ছিল তার আরেক প্রকাশ এই পরিবেশ। কখনই ভাল লাগতো না তাবু থেকে বেরুতে, আরেকটু খানি সময় থাকলে বা কি হয়? আমিই উত্তর দেই, সকালের সুর্যটাকে হারিয়ে ফেল্লে বাকিটা পথ পেরুতে আরও কষ্ট। সেই কথাই বাজতে থাকে মনে। রাতে বানিয়ে রাখা পিনাট বাটার আর রুটিতেই প্রাতরাশ সারি স্লিপিং ব্যাগের উষ্নতায়। কর্কষ ভাবে ঘড়ি বেজে ওঠে – উপায় নেই এখন ৬টা! আমার দিন শুরু।

যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাবুটাকে গুটিয়ে সব মালপত্র সাইকেল এ চাপিয়ে পানি ভরে নেই আমার বোতল গুলোতে। দেখতে দেখতে সকাল ৭ যে কখন বেজে যায় বুঝতেই পারতাম না।

সকালে প্রথম ধাক্কাটা হতো বাতাস। বেশ ঠান্ডাতো বটেই তার উপর হলো এর তেজ। মাথা কান ঢেকে যখন আবার চালান শুরু করতাম ফসলের জমিতে কেবল দুএক জন করে যারা আসছে, তারা আমাকে দেখে তাকিয়ে থাকতো্। তাদের আর দোষ কি এমন আগা মাথা মোড়া অবস্থায় সাইকেল চালতে কাউকে তারা দেখেনি। কিন্তু এ থেকে আমার আর কিছুই করার ছিল না। আমি এর চেয়ে বেশি ঠান্ডায় আরও বেশি দিন ছিলাম কিন্তু তার জন্য প্রস্তুত থাকতে হতো আগে থেকে। আর এখানে হলো আমি কখনই জানবো না ওয়েদার খারাপ হবে কখন। কথায় আছে এখানে এক ঘন্টার সব সিজন দেখা যায়।

সকাল ৮টার দিকে সূর্যের দেখা যেত।তখন আমার পায়ের ও তেজ বারত। কখনও বা উঠতি পথে আটকে যেত আমার পা। আমি যে কত দুর্বল তার প্রতিফলন পেয়েছি প্রতি বার। যে বার প্রথম পাহাড়ে গেলাম সে বার তো আমার অবস্থা মৃত প্রায়। গেল বারও বেশ কষ্ট হয়েছিল, আমাকে ঠান্ডা থেকে বাচাবার জন্য সবার কি অপ্রান চেষ্টা। তবে মাঝ পথে আটকে যাবার মত কোন ঘটনা ঘটেনি কখনও। আমার দূর্বলতা আমাকে তাড়িয়ে নিয়ে গেছে প্রতিটি বার, শেষ দেখার তাড়ায়। তাই প্রতিটি শেষ আমার চেনা।

এদিকের রাস্তা গুলোতে গতিসীমা দেয়া থাকে ১০০ কিমি। তাই পথে আমার চেয়ে ধীর গতির কিছুই নেই। পথ কখনও আকাবাকা কখনও মসৃন ভাবে চড়াইউৎরাই। সবই যেন মাপমত। সাউথ আইল্যান্ড এ আছে বিখ্যাত সাউদার্ন আল্পস আর একপাশে প্রশান্ত মহাসাগর। পর্বতের কারনে বেশির ভাগ স্টেট হাই ওয়েগুলো তার কোন না কোন অংশে এর ছাপ পেয়েছে। এতে ভ্রমনে আসে বাড়তি আনন্দ। এই মহাসড়কের নাম প্যসিফিক এ্যলপাইন ট্রায়েঙ্গেল। পরিকল্পনা করে প্রশান্ত মহাসাগরের একেবারে পার ঘেসে চলে গেছে তৈরি হয়েছে এই মহাসড়ক এবং তার সাথে লাগোয়া রেল লাইন।

প্রশান্ত মহাসাগরের পার ঘেসে এগুতে গিয়ে সমস্যা হলো যে শুধুই থামতে ইচ্ছে করে। এক বার থেমে হালকা খেয়ে আবার শুরু করার পর কেন জানি পা আর চলতে চাইতো না। মাথায় শুধু একটাই চিন্তা আবার কথনও থেমে মহাসাগরের দিকে তাকিযে তাকবো। তবে সত্যটা ছিল যতই ইচ্ছে থাকুক বেশিক্ষন অপেক্ষার কোন সুজোক ছিলনা।

সাইকেল চালাতাম আর উত্তর পম্চিম দিকে তাকিয়ে থাকতাম। আগের অভিঞ্জতা থেকে জানি পার্বত্য অঞ্চলের দিন হলো সকাল ৬টা থেকে বড়োজোড় দুপুর ২টা। তাই বেলা ১১টা থেকে ছোপ ছোপ মেঘ মাঝে মাঝেই সূর্য়ের তেজ খানিকটা কমিয়ে দিত। আমি ঘড়ির দিকে তাকিয়ে সাইকেল চালিয়ে যেতাম। আমার ঘড়িতে ব্যরোম্যট্রিক চাপ দেখা যায়। সময়ই আমাকে বলে দিত এখন বৃষ্টি হবে। বাচোয়া এইযে এখানের বৃষ্টি আমাদের মত অবিরাম নয়। প্রথম এক পশলা বৃষ্টি হবার পর পিছনের মেঘ গুলোকে আরো কালো হতে দেখা যেত যা আমাকে ভয় পাইয়ে দিত প্রতি দিন। মেঘবৃষ্টিঝরের দেশের মানুষ হয়েও হাড় কাপানো শীত আর কামড়ান বাতাসের মাঝে বৃষ্টি – মোটেও সুখের নয়। আমার সো কল্ড অল ওয়েদার টুয়ে ব্রেথেবল ওয়াটার প্রুফ টিম্বারল্যান্ড জ্যাকেটের প্রতিটি বুনন দিয়ে বাতাস হানতো আমার বুকের খাচায়।আমি কুকড়ে যেতাম।

পা চালাতে থাকতাম আরও জোরে। থামার কোনই কারন নেই। একবার থেমে গেলেই এই শীতে জমে যাব আমি। আর তারপরের ব্যপারাট ভাবার আগেই দমকা হাওয়া হেচকাটানে আমাকে রাস্তা থেকে টেনে নিয়ে এল পাশের ঘাসের জঙ্গলে। আরও সাবধান হয়ে গেলাম।

দুপুর বেলা চেষ্টা করতাম গরম কিছু খাবার তাই সকাল থেকেই সময়টা মেনে চালাতে হতো। কখনও বিফ পাই বা স্যস্ডউইচ এই ছিল ম্যনু আর এগুলোই ছিল সবচেয়ে কমদামের। দুনিয়ার খুব বেশি জায়গায় সাইকেল চালনার অভিঞ্জতা আমার নাই এটা সত্য তবে নিউ জিল্যান্ড মনে হয় সাইকেল চালনর জন্যই তৈরি। সাগরমহাসাগর, পবর্তনদী, বিস্তির্ন তৃর্নভূমির মাঝ দিয়ে অপার সৌন্দর্য ঘেরা রাস্তায় নি:সংকোচে ভ্রমনের মজা আমি বাংলাদেশ ছাড়া আর কোথাও পেয়েছি বলে আমার জানা নেই।

আমার প্রিয় সাইকেল

আমার প্রিয় সাইকেল

তবে এটা সত্য সে সৌন্দর্যের বর্ননা আমার লেখায় যেমন আসবে না তেমনি আমার ছবিতেও ধরা পরার সম্ভবনা খুবই কম। সারা জীবনেই অপ্রতুল জ্ঞান নিয়ে বেরে ওঠা আমার এই অনুসোচনা যে হ্য এটা সত্যি সুন্দর তবে আমাদের দেশের শ্রীমঙ্গল হয়ে জৈন্তাপুর যাবার সময় বড়চতুল বলে যে গ্রাম পরে আর সে গ্রামের পিছনে যে পাহাড়ের অবয়ব দেখা যায় স্পষ্ট তার সৌন্দর্য আমার পাপড়ি জুড়ে এখনও। এটা ঠিক ঐ পাহাড়েরর নাম আল্পস নয়, এই নদীর নাম ওয়াইকারা নয়, মেষঘোড়াহরিন চরে না আমাদের জমিতে; তবে ঐ যে অপারঅপলক ভাললাগর জমিন জুড়ে ডলে দেয়া সবুজ রংএর ঘাসধানের কচি শীষ তার বিভিষিকাময় ভাললাগার অনুভূমি এর থেকে একে বারেই কি কম? সারি নদীর রং আর পানির ধরন কি এক বারেই আলাদা? আমার তা মনে হয় না। বরং অবহেলা অযত্নে প্রেমের বাহার ছরানর মদ গুনও আছে যে তার, সে খেয়াল কি আমাদের আছে?

আছে আমাদেরও আছে, শুধু দেখে যাবার চোখটা আমাদের নষ্ট হয়ে গেছে কেন জানি। তাই বাংলাদেশ মনে হয় মহাদেবের মতই বলে

বহু দিন ভালবাসাহীন
বহু দিন উথাল
পাথাল
বহু দিন পরেনি কোন হাত কপালে
বহু দিন ভালবাসাহীন
!

if anyone wants to communicate with me regarding anything, plz drop some lines here muntasir@gmail.com

Posted by: muntasir | October 6, 2008

Commercial at Adventure Magazine 150th issue

 

Commercial at Adventure Magazine 150th issue

Commercial at Adventure Magazine 150th issue

Older Posts »

Categories